৯২ বছরের সাত্তার আদালতে আসলেন কোলে চড়ে, অভিযোগ গ’রু চু’রি

শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে

গরু চু রি মা’মলার আ সামি পঙ্গু অর্থাৎ শারীরিকভাবে অসমর্থ বিরানব্বই বছর বয়সী বৃ দ্ধ আব্দুস সাত্তার আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। ১২ নভেম্বর মঙ্গলবার রংপুরের জুডিশিয়াল আদালতের হাকিম তাকে জামিন প্রদান করেন।

বয়সের ভারে নুয়ে পড়া আব্দুস সাত্তার দীর্ঘ দশ বছর ধরে বিছানায় শয্যাশায়ী। পরিবারের লোকজনের সহায়তায় কোলে বসিয়ে তাকে আদালতে তোলা হয়।

জানা গেছে, ২০১৮ সালে রংপুরের পীরগাছা থানা পু লিশ সাত্তারের বি রুদ্ধে গ রু চুরি র মা মলা দেয়। এমা মলায় সাত্তারের ছেলে মেয়ে ও পরিবারের সদস্যদেরকেও আ mসামি করা হয়।

আব্দুস সাত্তার রংপুরের পীরগাছা উপজেলার তালুকপারুল এলাকার বাসিন্দা। সাত্তারের পারিবারিক সূত্রের দাবি,

পাশ্ববর্তী বাসিন্দা আব্দুল জলিলের সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধের সূত্র ধরে অভিযোগের প্রেক্ষিতে পীরগাছা থানা পুলিশ ২০১৮ সালে সাত্তারের বাড়িতে গ্রে ফ তার অভিযান পরিচালনা করে।

পুলি শের উপ পরিদর্শক (এসআই) গোলাম রব্বানীর নে তৃত্বে সাত্তারের দুই মেয়ে সাহিনুর বেগম, শাহনাজ ও তার পু ত্রকে আ টক করে থা নায় নিয়ে যায়।

রাতভর আ টকে রেখে পুলিশ ৩৫ হাজার টাকা ঘু ষ নিয়ে শাহনাজ বেগমকে ছেড়ে দেয়। আব্দুস সাত্তার তার পরিবারের সদস্যসহ ৩/৪ জনকে আ সামি করে শাহীনুর আক্তারকে গ্রে প্তা র দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে পীরগাছা থানা পু লিশ।

১২ নভেম্বর প্রতিবেদকে রংপুর জুডশিয়াল আদালতের সিড়িতে আব্দুস সাত্তা রকে কোলে করে নামার সময় এসব তথ্য দেন আব্দুস সাত্তারের পরিবারের লোকজন।

তারা পুলি শের দায়ের করা মা মলাটির অভিযোগ মি থ্যা দাবি করে বলেন, আমাদের শেষ ভরসা হচ্ছে আদালত। অভিযোগের সু ষ্ঠু তদন্ত হলেই প্রকৃত ঘটনা বেড়িয়ে আসবে । আদালতে আমরা ন্যা য় বিচার পাবো।

রংপুর আদালতের আইনজীবী ফাহিম জানান, পীরগাছা থানায় পঙ্গু অর্থাৎ শারীরিকভাবে অসমর্থ বিরানব্বই বছর বয়সী বৃদ্ধকে আসামি করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হয়েছে।

আক্রোশ ও শত্রুতাবশত এবং পুলিশের অবহেলায়। এটি করে মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন করা হয়েছে।

এদিকে রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার ভিমপুর কাজীপাড়া গ্রামের বাষট্রি বছর বয়সী আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করেন, গত ৭ নভেম্বর তিনিসহ পরিবারের ৮ জন নিরীহ মানুষের নামে মিথ্যা মামলা করেছে পুলিশ।

রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার জানান, এজেলায় নতুন যোগদান করেছি। মিথ্যা অভিযোগে মামলা হলে, তদন্ত করে প্রমানিত হলে সংশ্লিষ্টের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Author: editor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *